শুক্রবার, আগস্ট 17, 2018
Home > ভারতীয় বীরগণ > ছত্রপতি শিবাজি মহারাজ > মারাঠা সেনানায়ক সান্তাজি ঘোরপাড়ে কর্তৃক ঔরংজেবের শিবির আক্রমণ

মারাঠা সেনানায়ক সান্তাজি ঘোরপাড়ে কর্তৃক ঔরংজেবের শিবির আক্রমণ

সান্তাজি ঘোরপাড়ের নেতৃত্বে একটি অত্যন্ত দুঃসাহসী আক্রমণ চালানো হয়েছিল, তাও আবার একেবারে ঔরংজেবের নিজের শিবিরে। সেই সময়ে ঔরংজেবের শিবির ফেলা হয়েছিল, কোরেগাঁও অঞ্চলে শিবিরটি ছিল, এই অঞ্চলটি পুণার কাছে অবস্থিত এবং তারা সেখান থেকে চাকানের দুর্গটি দখল করার ছক কষছিল। তার গোটা শিবিরটিই ওখানে ফেলা হয়েছিল। তবে সান্তাজি ঘোরপাড়ে এবং তাঁর চরেরা সেই শিবিরের গোটা নকশাটি নিখুঁতভাবে জেনে নিয়েছিলেন।আপনারা দেবগিরির যাদবদের সময়কালে যা ঘটেছিল তার সঙ্গে এই ঘটনাটির তুলনা করতে পারেন। মাত্র পনেরো মেইল দূরত্বে কি ঘটছে না ঘটছে সে বিষয়ে তাঁদের কোনো ধারণাই ছিল না। সান্তাজি ঘোরপাড়ে গোটা শিবিরের নকশাটি খুঁজে পেতে সমর্থ হয়েছিলেন, কোথায় ঔরংজেবের তাঁবু, সৈন্যদের তাঁবুই বা কোথায় সবই তাঁর নখদর্পণে ছিল।

রাতের বেলা ঘোর অন্ধকারে তিনি প্রবেশ করতে পেরেছিলেন, তবে এক প্রহরী তাঁর পথ আটকেছিল। তাঁর সঙ্গে প্রায় পঞ্চাশজন সৈনিক ছিল, অর্থাৎ সান্তাজি ঘোরপাড়ের সঙ্গে, গোটা পরিকল্পনাটি ছিল এইরকম –ঔরংজেব যেখানে রয়েছে সেই তাঁবুতে গিয়ে তার মাথাটি কেটে সঙ্গে ক’রে বিশালগড়ে নিয়ে আসা, এই ছিল পরিকল্পনা। তাঁরা এদের চোখে ধুলো দিয়ে প্রবেশ করতে সক্ষম হয়েছিলেন এই ব’লে যে তাঁরা আসলে ঔরংজেবের পক্ষে রয়েছেন। কিছু মারাঠা সর্দারেরা ঔরংজেবের হয়ে কাজ করছিল। এই কারণে তাঁরা চোখে ধুলো দিতে সমর্থ হয়েছিলেন, কারণ তাঁরা বলেছিলেন যে তাঁরা কেবল কিছু সৈনিক মাত্র, অমুক অমুক মারাঠা সর্দারের অধীনেকাজ করেন, সেই সর্দার ঔরংজেবের হয়ে কাজ করছে, তাই স্বাভাবিকভাবেই আমরা গিয়ে তাঁর দলে যোগ দেবো।যেই না প্রবেশ মিলবে, তাঁরা প্রহরীদের হত্যা করবেন।

দুর্ভাগ্যজনকভাবে সেই সময় ঔরংজেব তার তাঁবুতে ছিল না, তবে সান্তাজি ঘোরপাড়ে তার তাঁবুর দড়িদড়াগুলি কেটে ফেলতে সক্ষম হয়েছিলেন, গোটাবাদশাহী তাঁবুটিকেই খুলে নামিয়ে এনেছিলেন, এই তাঁবুর কথা যদি বলতে হয় তাহলে বুঝতে হবে যে সেটি অন্ততঃ পাঁচশো মিটার লম্বা ছিল, তিনি এই বাদশাহী তাঁবুটি খুলে ফেলেছিলেন, তাঁবুর মাথায় বেশ কিছু সোনার চূড়া লাগানো ছিল, যাতে বোঝা যায় যে সেটি ঔরংজেবের তাঁবু। সান্তাজি ঘোরপাড়ে সেই সোনার চুড়াগুলি উপড়ে ফেলেছিলেন। এরপর অবশ্যই খুব ঢিঢি প’ড়ে গেছিল কারণ সকলেই বাদশাহী তাঁবুটির সমূলে উৎপাটন চাক্ষুষ করেছিল। তিনি বেঁচে পালাতে পেরেছিলেন, সিংহগড়ে ফিরে এসেছিলেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: