বৃহস্পতিবার, নভেম্বর 15, 2018
Home > জানেন কি > প্রজননের গুরুত্ব এবং কেন হিন্দু ধর্মে গর্ভপাতকে ব্রহ্মহত্যা হিসেবে দেখা হয়

প্রজননের গুরুত্ব এবং কেন হিন্দু ধর্মে গর্ভপাতকে ব্রহ্মহত্যা হিসেবে দেখা হয়

প্রজননের গুরুত্ব কোথায়? আমাদের সমগ্র হিন্দু পরম্পরায় জন্মদান করাকে অত্যন্ত পবিত্র কাজ ব’লে মনে করা হয়, অত্যন্ত পুণ্য কাজ ব’লে মনে করা হয়, একটি অত্যন্ত সুফলপ্রদ ধার্মিক ক্রিয়া বলে মনে করা হয়, ঠিক কেন? কারণ, জন্মদান শুধুমাত্র শিশুর জন্ম দেওয়ার মধ্যেই সীমিত নেই, যেমনটা আমরা আজকাল ব’লে থাকি। এটা শুধু একটি শিশুকে জন্ম দেওয়াই নয়। এ হ’ল একজন অপেক্ষারত জীবকে সুযোগ দেওয়া, এই প্রক্রিয়াটি একবার জন্ম গ্রহণের ব্যাপার নয়। হিন্দু পরম্পরায় বিশ্বাস করা হয় যে পুনর্জন্ম বার বার ঘটে, যতক্ষণ না একজন মোক্ষ লাভ করছে, আর এই মোক্ষই হ’ল চরম লক্ষ্য। তবে সেটি অর্জন করবার জন্য তাকে বার বার অনেকগুলি জন্মের মধ্যে দিয়ে যেতে হবে, তাই প্রত্যেকটি জন্মই একটি জীবের জীবনে গুরুত্ব বহন করে, এবং এই জীব, একটি বিশেষ জীব, যার সাথে আপনি কর্মফলের বন্ধনে জড়িয়ে রয়েছেন, এমন একটি সূত্র রয়েছে যা হ’ল পুত্র অথবা কন্যা বা ঐরকম কিছু, আপনি সেই জীবটিকে একটি সুযোগ দিচ্ছেন এই জড়জগতে আরও একবার জন্মগ্রহণ করবার এবং প্রকাশিত হবার, এবং এগিয়ে যাবার, যাতে সে নিজের কর্মবন্ধন ঘোচাতে পারে, যাতে সে মোক্ষলাভ করবার লক্ষ্যের কাছাকাছি পৌঁছতে পারে।

তাই এই জন্মটি একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার, এই কারণে জন্মদান করাকে অত্যন্ত ধার্মিক ক্রিয়া হিসেবে দেখা হয়ে থাকে, কারণ আপনি জীবদের তাদের কর্মযাত্রা নির্বাহ করবার সুযোগ ক’রে দিচ্ছেন। তাহলে কীভাবে আমরা, কোন্‌ কোন্‌ পরিস্থিতিতে এই প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত ঘটাই? একটি হ’ল গর্ভপাত; যখন আপনি স্বেচ্ছায় এই সিদ্ধান্ত নেন যে আপনি শিশুটির জন্ম দিতে চান না, পরম্পরায় গর্ভপাতকে ব্রহ্মহত্যার সঙ্গে তুলনা করা হয়, কেন? ব্রহ্মহত্যা ঠিক কী? আমাদের বুঝতে হবে যে ব্রহ্মহত্যা ঠিক কী। আজকের দিনে আপনারা ভাববেন যে, ব্রাহ্মণ, আচ্ছা নিশ্চয়ই তাহলে এটি একটি ব্রাহ্মণ্যবাদী ষড়যন্ত্র। ব্রহ্মহত্যা কী তা বুঝতে গেলে আপনাকে জানতে হবে শাস্ত্র-পরম্পরায় ব্রাহ্মণ বলতে কী বোঝানো হয়েছে। ব্রাহ্মণ, একখানি স্মৃতিশাস্ত্রের মতে, ঠিক ক’রে বলতে গেলে মনুস্মৃতির মতে সেই হচ্ছে ব্রাহ্মণ যে সকলের মিত্র। তিনি এমন একজন ব্যক্তি যাকে কেউ ভয় করে না কারণ তিনি কাউকে কায়মনোবাক্যে কখনো আঘাত করবেন না, তাই না? এবং তিনিই ব্রাহ্মণ যিনি সত্যপরায়ণ, যিনি অহিংস, যাঁর ইন্দ্রিয় সদা সংযত, যিনি কখনো কোনো অন্যায় কাজ করেন না, যিনি কখনো কোনো দুর্নীতির আশ্রয় নেন না। কাজেই ব্রাহ্মণ কে সেই বিষয়ে অনেক কিছু বলা হয়েছে। যিনি ব্রহ্মকে জেনেছেন তিনি ব্রাহ্মণ, তিনি হলেন অপাপবিদ্ধ। তাই যখন বলা হয় যে ব্রহ্মহত্যা একটি মহাপাপ, তার অর্থ এই যে এমন একজন নিষ্পাপ মানুষের হত্যা করা মহাপাপ এবং এই একই অর্থে যার এখনো জন্ম হয়নি সেরকম একটি শিশুও একইরকম নিষ্পাপ, আর তাই গর্ভপাত একটি মহাপাপ, এইজন্যেই একে ব্রহ্মহত্যার সঙ্গে তুলনীয় বলা হয়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: